ইউক্রেনে যে কারণে এখনো হামলা চালাচ্ছে রাশিয়া

কিয়েভ আলোচনায় বাস্তবসম্মত অবস্থান না নেওয়া পর্যন্ত রাশিয়া ইউক্রেনের সামরিক সম্ভাবনাকে দুর্বল করার জন্য হামলা চালিয়ে যাবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া।

বুধবার জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া এসব কথা বলেছেন। খবর তাসের।

তিনি বলেন, রুশ বাহিনী ‘পশ্চিমা অস্ত্র দিয়ে দেশটিকে প্লাবিত করার প্রতিক্রিয়ায় এবং কিয়েভকে রাশিয়া পরাজিত করার জন্য বেপরোয়া আহ্বানের প্রতিক্রিয়া হিসেবে ইউক্রেনের অবকাঠামোগত সুবিধাগুলিকে লক্ষ্যবস্তু করছে।’

তিনি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে বলেন, বিশেষ সামরিক অভিযানের একটি লক্ষ্য হলো— ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর যুদ্ধ ক্ষমতাকে দুর্বল করা এবং কিয়েভ সরকার একটি বাস্তবসম্মত অবস্থান না নেওয়া পর্যন্ত এটি সামরিক উপায়ে অর্জিত হবে, যা আলোচনা করা এবং সেই সমস্যাগুলো সমাধান করার চেষ্টা করা সম্ভব করবে, যা আমাদের বিশেষ সামরিক অভিযান শুরু করার জন্য উদ্বুদ্ধ করেছে।

রাশিয়ার এ কূটনৈতিক নেতা বলেন, এখন পর্যন্ত আমরা জেলেনস্কি এবং তার মিত্রদের কাছ থেকে যা শুনেছি, তা শান্তির জন্য প্রস্তুতি হিসেবে ব্যাখ্যা করা যায় না; বরং এটি বেপরোয়া হুমকি ও আলটিমেটামের ভাষা।

তিনি বলেন, কিয়েভের পশ্চিমা পৃষ্ঠপোষকরা শুধু এ ধরনের দায়িত্বজ্ঞানহীন পথকে উৎসাহিত করে। যেহেতু তারা ইউক্রেনীয় ভূখণ্ড শেষ ইউক্রেনীয় পর্যন্ত যুদ্ধে আগ্রহী। কারণ এটি তাদের প্রতিরক্ষা খাতের পক্ষে প্রচুর মুনাফা অর্জন এবং ন্যাটোর অস্ত্র পরীক্ষা করা সম্ভব করে তোলে।

নেবেনজিয়া বলেন, ‘এইভাবে, পশ্চিমা দেশগুলো সাধারণ ইউক্রেনীয়দের জীবনের মূল্য দিয়ে তাদের ভূরাজনৈতিক আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করতে চাইছে।’

Share this post

PinIt
submit to reddit

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top