ইরানের প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে নিউইয়র্কে মামলা

রাজনৈতিক বন্দিকে গণহত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির বিরুদ্ধে নিউইয়র্কে মামলা করা হয়েছে।

গত সপ্তাহে নিউইয়র্কে এ মামলা করা হয়। খবর আরব নিউজের।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে— ১৯৮৮ সালে তেহরানের এভিন ও গোহার্দশত কারাগারে অন্যায়ভাবে এবং যথাযথ প্রক্রিয়া ছাড়াই ইরানের শাসনের বিরোধী ৩০ হাজার লোককে হত্যা করা হয়েছিল। ওই হত্যা প্রক্রিয়ায় রাইসিও যুক্ত ছিলেন। ২০২১ সালের আগস্টে তিনি ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন।

ইরানের ন্যাশনাল কাউন্সিল অব রেজিস্ট্যান্সের (এনসিআরআই) মার্কিন প্রতিনিধি সুনা সামসামি বলেন, ১৯৮৮ সালের গ্রীষ্মে সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনি এক ফতোয়ায় আদেশ দিয়েছিলেন, মুজাহিদীন-ই খালকের (এমইকে) সব সদস্য এবং এ সংগঠনের প্রতি যারা সহানুভূতিশীল ও অনুগত তাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হবে। পরের তিন মাসে মুজাহিদীন-ই খালকের হাজার হাজার সদস্যকে ফাঁসি দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার সামসামি এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, এমইকে ও এনসিআরআই ১৯৮৮ সালের গণহত্যার প্রথম দিন থেকে ন্যায়বিচারের আহ্বান জানিয়ে আসছে। চলমান শাসনের পতন না হওয়া পর্যন্ত এবং ইরানে স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত না হওয়া পর্যন্ত ন্যায়বিচারের জন্য এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। রাইসি ও ইরানের বর্তমান সর্বোচ্চ নেতা খামেনিসহ এ সরকারের অপরাধী নেতাদের বিচারের আওতায় না আনা পর্যন্ত আমাদের এ কার্যক্রম চলতে থাকবে।

মামলাটি দায়ের করেছেন, গণহত্যা থেকে বেঁচে যাওয়া কয়েকজন এবং ওই সময় নিহত কয়েকজনের স্বজন। তাদের মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য, জার্মানি এবং সুইজারল্যান্ডের নাগরিক আছেন।

মামলার একজন আইনজীবী স্টিভেন এম স্নিবাউম বলেন, এই মাত্রার একটি অপরাধের জন্য, আজ পর্যন্ত কোনো বিচার হয়নি। বিচারক ১৫ নভেম্বর প্রাথমিক শুনানির দিন ধার্য করেছেন।

Share this post

PinIt
submit to reddit

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top