সিরাজগঞ্জের মেছড়া ইউনিয়ন ইউপি নির্বাচনের ফল পাল্টানোর অভিযোগ!

দ‌,সিরাজগঞ্জে পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচনে মেছড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ফল পাল্টানোর অভিযোগ উঠেছে রিটার্নিং কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। স্থগিত রাখা একটি কেন্দ্রের ফল গরমিল করে গত বৃহস্পতিবার রাতে নির্বাচন কমিশন বরাবর এ ফল পাঠিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম শুক্রবার সকালে সিরাজগঞ্জ শহরের কালীবাড়িতে নিজ বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন। তিনি গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, ‘দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং ও প্রিসাইডিং কর্মকর্তা বিশেষ গোষ্ঠীর প্রভাবে নৌকার প্রার্থী আব্দুল মজিদকে বিজয়ী করতে ফলাফল কারসাজির নাটক করেছেন।’ এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি। আগের তালিকায় স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম ৩৬৫ ভোটে জিতলেও রিটার্নিং কর্মকর্তার নতুন ফলাফলে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল মজিদ ২২৪ ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হন।

জানা গেছে, তেঘরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শেষে বুধবার সন্ধ্যায় প্রিসাইডিং কর্মকর্তা এশারত আলীর প্রাথমিক ঘোষণায় নৌকার প্রার্থী আব্দুল মজিদ পান ১৮৫ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মাতলুবুর রহমান (হাতপাখা) পান ৫৯ ভোট, আলামিন সরকার (মোটরসাইকেল) পান ১ হাজার ৩২ ভোট, গোলাম মোস্তফা (আনারস) পান ৬৯ ভোট এবং জাহাঙ্গীর আলম (চশমা) পান ৪২৯ ভোট। মোট ভোটার ২ হাজার ৪১৪ জন, বৈধ ১ হাজার ৭৭৪, বাতিল ৬, অনুপস্থিতি ৬৩৪ জন। ভোটার উপস্থিতি ৬৮ দশমিক ৮৭ শতাংশ। তেঘরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র বাদে ওই ইউনিয়নের ১০টি কেন্দ্রের প্রাথমিক ফলাফলে নৌকার প্রার্থী আব্দুল মজিদ পান ২ হাজার ৭৩১ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম পান ২ হাজার ৮৫২ ভোট। ফলাফলে ৩৬৫ ভোটের ব্যবধানে সেদিন বিজয়ী হন জাহাঙ্গীর আলম।কিন্তু প্রিসাইডিং কর্মকর্তা এশারত আলীর গরমিলের দ্বিতীয় তালিকাসহ রিটার্নিং কর্মকর্তার বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার চূড়ান্ত ঘোষণায় মেছড়ায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল মজিদ পান ৩ হাজার ৫০৫ ভোট এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম পান ৩ হাজার ২৮১ ভোট। এরমধ্যে তেঘরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা ৭৭৪ ভোট এবং চশমা ৪২৯ ভোট। কেন্দ্রটিতে বৈধ ভোট ২ হাজার ২৭৫। সংশোধিত তালিকা অনুযায়ী নৌকার প্রার্থী আব্দুল মজিদ ২২৪ ভোটে বিজয়ী হন।

প্রিসাইডিং কর্মকর্তা সদর উপজেলার বাগবাটি বিএম টেকনিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ এশারত আলীর মোবাইল ফোনে শুক্রবার একাধিকবার ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা হলরুমে রিটার্নিং কর্মকর্তা আজিজার রহমান প্রার্থীদের বলেন, ‘প্রিসাইডিং কর্মকর্তার গরমিলের বিষয়টি ইসি অবগত হয়েছেন। সিদ্ধান্ত এলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং কর্মকর্তা আজিজার রহমান দাবি করেন, ‘প্রিসাইডিং কর্মকর্তার রাতে জমাকৃত ফলাফলকেই চূড়ান্ত বিবেচনা করে ইসির নির্দেশে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে।’ তিনি বলেন, বুধবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে তেঘরী কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ঘোষিত ফল চূড়ান্ত ধরে বৃহস্পতিবার ফল ঘোষণা করা হয়েছে। ওই ফলাফলে নৌকার প্রার্থী আব্দুল মজিদ ২২৪ ভোট বেশি বিজয়ী হয়েছেন।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম জানান, ভোট গণনায় গরমিলের বিষয়ে প্রার্থীদের অভিযোগ দুটি বৃহস্পতিবার দুপুরে ইসি বরাবর পাঠানো হয়। সেখান থেকে বৃহস্পতিবার এক নির্দেশনা আসে। সে অনুযায়ী ভোটের রাতে নির্বাচন অফিস বরাবর প্রিসাইডিং কর্মকর্তার দেওয়া তালিকাটি চূড়ান্ত ধরে নৌকার প্রার্থীকেই বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।

Share this post

PinIt
submit to reddit

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top